প্রচণ্ড গরমে সুস্থ থাকার কিছু উপায়

প্রচণ্ড গরমে সুস্থ থাকার কিছু উপায়

হঠাৎ করে তাপমাত্রা বেড়ে গেছে অস্বাভাবিকভাবে এতে আমাদের জীবনযাত্রা হয়ে পড়েছে অতিষ্ঠ। প্রচণ্ড গরমে অত্যাধিক ঘামে শরীর থেকে প্রচুর পরিমান পানি ও লবণ বের হয়ে যায় এতে আপনি অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন এবং হিটস্ট্রোক, ডায়রিয়া, রক্তচাপ কমে যাওয়া সহ জটিল রোগ সৃষ্টি হতে পারে। কিছু সতর্কতা ও কৌশল অবলম্বন করলে এই গরমে আমাদের কিছুটা সুস্থ থাকতে সাহায্য করবে।

প্রচুর পরিমাণ পানি পান করুনঃ
এই তীব্র গরমে আমাদের সবাইকে প্রচুর পরিমাণ পানি পান করা উচিত কারন অত্যধিক ঘামের কারনে শরীর পানি স্বল্পতায় থাকে। শরীরে পানি ও লবণঘাটতি মেটাতে খাওয়ার স্যালাইন, ডাবের পানি পান করতে পারেন। শিশুরা যেহেতু পানি পানে অনীহা প্রকাশ করে তাই এই গরমে তাদের পানি পানে অভ্যাস করানো যাতে শরীরে পানিসল্পতার সৃষ্টি না হয়।

ত্বকের অস্বস্তিভাব দূর করুনঃ
এই গরমে ত্বকের অস্বস্তিভাব দূর করতে কিছুক্ষণ পরপর চোখ ও মুখে পানি দিতে পারেন এতে কিছুসময় আরাম লাগবে। চোখের অস্বস্তিভাব দূর করতে সানগ্লাস ব্যাবহার করতে পারেন যা আপনার চোখকে প্রচণ্ড রোদ থেকে রেহাই দেবে। যারা বাসা/অফিস এর বাহিরে থাকেন বেশিরভাগ সময় তারা সানস্ক্রিন ব্যাবহার করতে পারেন যা আপনাকে কিছু সময়ের জন্য বেশ কাজে দিবে। রোদে বের হলে ছাতা ব্যাবহার করতে পারেন। ঘাম প্রতিরোধের জন্য ডিওডোরেন্ট ব্যাবহার করতে পারেন যা আপনাকে ঘামজনিত দুর্গন্ধ থেকে দূরে রাখবে। গোসলের পর সাথে সাথে ব্যাবহার না করে ১৫ মিনিট পর ব্যাবহার করতে পারেন এত কার্যকারিতা দীর্ঘসময় থাকবে।

শাকসবজি ও ফলমূল খেতে হবেঃ
গরম ছারাও সারা বছরই চর্বিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলা ভাল আর এই গরমে আপনাকে চর্বিযুক্ত খাবার অস্বস্তিভাব এনে দিতে পারে। চিনি, গরুর মাংস, তৈলজাতীয় খাবার এড়িয়ে চলুন। প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় সতেজ শাকসবজি ও ফলমূল রাখতে পারেন যা আপনাকে সতেজ রাখবে সারাদিন।

খোলামেলা পোশাক পরিধান করুনঃ
এই গরমের তীব্রতা থেকে রক্ষা পেতে সুতি কাপড় পরিধান করুন সুতি কাপড় ঘাম জমতে দেয়না। বাচ্চাদের পা সাধারণত ঠাণ্ডা থাকে তাই সুতি মোজা পরাতে পারেন।

ব্যায়াম করুন এবং ফিট থাকুনঃ
সুস্থ এবং ফিট থাকার জন্য সারাবছর ব্যায়াম করা সবার জরুরী। তবে অবশ্যই ব্যায়াম সকাল অথবা বিকালের পড়ে করতে হবে দিনের রোদের ভিতর করলে অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন আপনি। ব্যায়ামের সময় পাতলা পোশাক পরিধান করুন যা আপনার শরীরকে হালকা রাখবে এবং ব্যায়াম করে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করতে পারবেন।

প্রয়োজন ছাড়া দিনের প্রচণ্ড রোদের সময় বাহিরে না যাওয়া ভাল।নিয়ম মেনে চললে আমরা সবাই সুস্থ থাকতে পারি। তাই আসুন নিজে সুস্থ থাকি এবং অন্যকে সুস্থ থাকতে সহযোগিতা করি।