সারাবিশ্বে প্রথমবারের মত ক্লোন বানর করলো চীন

সারাবিশ্বে প্রথমবারের মত ক্লোন বানর করলো চীন

প্রায় ২২ বছর আগে গত শতকের নব্বুইয়ের দশকের শেষ দিকে স্কটল্যান্ডের প্রাণিবিজ্ঞানীরা ডলি নামের একটি ক্লোন ভেড়ার জন্ম দিয়ে গোটা দুনিয়াকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন। তাঁরই ধারাবাহিকটায় এবার চীনা বিজ্ঞানীরা জন্ম দিলেন বিশ্বের প্রথম ক্লোন বানর

তারা কয়েক সপ্তাহ আগে গবেষণাগারে দুটি ক্লোন বানরের জন্ম দিয়েছেন। প্রাচীন চৈনিক জাতির নামানুসারে বানর দুটির নাম রাখা হয়েছে, ঝোং ঝোং এবং হুয়া হুয়া। তারা বোতলজাত খাবার খাচ্ছে এবং সুস্থ্য-সবলভাবে বেড়ে উঠছে বলে নিশ্চিত করেছেন গবেষকরা।

সাংহাই এর এক ল্যাবরেটরিতে গত বছরের ডিসেম্বরে তাদের জন্ম হয়। ‘সোমাকিট সেল নিউক্লিয়ার ট্রান্সফার’ পদ্ধতি ব্যবহার করে এদের সৃষ্টি করা হয়। কোষের নিউক্লিয়াসের ডিএনএ একটি ডিম্বাণুতে স্থানান্তর করা হয় এই প্রক্রিয়ায়। এরপর এটিকে ভ্রূণে পরিণত করা হয়। ভবিষ্যতে মানুষের নানা রোগব্যাধির গবেষণায় এই ক্লোনিং পদ্ধতি অনেক কাজে লাগবে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

প্রাণিবিজ্ঞানীদের অনেকেই ক্লোনিংয়ের মাধ্যমে বানরশাবক জন্ম দেয়ার নৈতিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তাদের আশঙ্কা, এর মধ্য দিয়ে মানুষের ক্লোনিং করার ঝুঁকির কাছাকাছি চলে এসেছে পৃথিবী। কেননা বানর হচ্ছে জেনেটিক গঠনের দিক থেকে মানুষের খুব কাছাকাছি থাকা প্রাণি। যারা এ ব্যাপারে নৈতিকতার প্রশ্নটি সামনে এনেছেন তাদের মধ্যে আছেন কেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রখ্যাত বিজ্ঞানী অধ্যাপক ড্যারেন গ্রিফিন।